টিভি ব্রেকিংঃ
ঝিনুক টিভির পক্ষথেকে সকল দর্শকদের জানাচ্ছি আন্তরিক শুভেচ্ছা। ঝিনুক টিভি আসছে নতুন নতুন সব আয়োজন নিয়ে। পাশেই থাকুন
বাফুফের বিরুদ্ধে লেখা মানেই দেশের বিরুদ্ধে যাওয়া: সালাউদ্দিন

বাফুফের বিরুদ্ধে লেখা মানেই দেশের বিরুদ্ধে যাওয়া: সালাউদ্দিন

দুর্নীতির অভিযোগে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনকে (বাফুফে) দেয়া সকল প্রকার আর্থিক অনুদান বন্ধ করে দিয়েছে বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা।

এর বিপরীতে বাফুফের কাছে কিছু কাগজ চেয়েছে সংস্থাটি। বেশকিছুদিন আগে ঘটনাটি ঘটলেও বার বার তা অস্বীকার করে আসছিলেন বাফুফে সাধারন সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ।

তবে শেষ পর্যন্ত ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও ফিন্যান্স কমিটির চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম মুর্শেদী জানিয়েছেন, ‘ফিফা আমাদের আর্থিক হিসেবে গড়মিল খুঁজে পেয়েছে। তাই অনুদান বন্ধ রয়েছে। ফিফার সাথে আমাদের এই বিষয়ে সভা রয়েছে। সভার পরেই মূলত এই বিষয়ে স্পষ্ট করে বলা যাবে।’

অনুদান হিসেবে প্রতি বছর সাড়ে ৪ লাখ ডলার পেয়ে থাকে ফেডারেশন। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ৪ কোটি টাকা। ফুটবল উন্নয়নের কাজে ব্যয় করতে ফিফা এ অনুদান দিয়ে থাকে। তবে কোন কোন খাতে তা ব্যয় হলো তার হিসাব দিতে হয় ফিফার কাছে। হিসাব পাঠালেও ফিফা তাতে সন্তুষ্ট না হয়ে চিঠির মাধ্যমে তা বন্ধ করে দিয়েছে বলে জানা যায়।

তবে বাফুফের অর্থ কমিটির চেয়ারম্যান সালাম মুর্শেদী সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগকে ভিত্তিহীন ও বানোয়াট বলে মন্তব্য করেছেন।

এবার এ বিষয়ে মুখ খুললেন ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন। তিনি বলেন, ‘গণমাধ্যম আমার বিরুদ্ধে সংবাদ উপস্থাপন করে সেটা আলাদা বিষয়। কিন্তু ফুটবল ফেডারেশনের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশের কোনো অধিকার তাদের নেই। ফুটবল ফেডারেশন আপনারও না, আমারও না। ফুটবল ফেডারেশন হলো দেশের। তাই ফুটবল ফেডারেশনের বিরুদ্ধে নিউজ করা মানে দেশের বিরুদ্ধে নিউজ করা। ’

তিনি আরও বলেন, ‘আপনাদের যদি নিউজ করতে হয় তাহলে আপনারা আমার কাছে আসেন, ঘটনা শোনেন তারপর সংবাদ উপস্থাপন করতে পরেন। তথ্যগুলো সঠিক দেওয়া উচিত কারণ ফুটবল ফেডারেশনের বিরুদ্ধে সংবাদ করলে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশর নাম খারাপ হয়। ’

এদিকে বাফুফের অর্থ কমিটির চেয়ারম্যান সালাম মুর্শেদী জানান, বাফুফে গত জানুয়ারিতেও কিছুদিন আগে অনুদানের অর্থ পেয়েছে। প্রয়োজনে এর প্রমাণও আমরা দেখাতে পারব। অনুদান নিয়ে বাফুফের অর্থ কমিটি ভার্চুয়াল বৈঠক হবে এটা অনেকেই জানতেন। তাই কে বা কারা গুজব ছড়িয়ে বলেছেন ফান্ড বন্ধ করে দিতে ভার্চুয়ালি আমাদের তলব করা হয়েছে। ফিফার তিন ডিপার্টমেন্টের প্রতিনিধির সঙ্গে আমার আলাপ হয়েছে। সন্তোষজনক আলোচনা হয়েছে। তবে তারা কিছু গাইড লাইন বেঁধে দিয়েছে এই যা। আমরা যেখানে ফিফার অডিট বিভাগের প্রশংসাপত্র পেয়েছি সেখানে ফান্ড বন্ধের ব্যাপারটি গুজব।

শেয়ার করুনঃ

Comments are closed.

© All rights reserved © 2020 | jhenuktv.com
Developed BY POS Digital
Buy,Sale,Rent Property in Dhaka Bangladesh at ghorbareewala

Visit Ghorbaree Wala